আইপিএলে খেলার সিদ্ধান্ত সাকিবের উপরই ছাড়ছে বিসিবি

আগামী মার্চে মাঠে গড়াবে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১২তম আসর। এবারের আসরেও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে সাকিব আল হাসানের খেলার কথা রয়েছে। যদিও চোটের কারণে বর্তমানে জাতীয় দলের হয়েও খেলতে পারছেন না সাকিব।
চলমান নিউজিল্যান্ড-বাংলাদেশ ওয়ানডে সিরিজে অনুপস্থিত সাকিব টেস্ট সিরিজ চলাকালেই সুস্থ হয়ে উঠবেন। এরপর আইপিএলেও খেলতে পারবেন, যদি ফিট থাকেন। একের পর এক চোটের শিকার হওয়া সাকিব আইপিএলে খেললে বিশ্বকাপের আগে তার ফিটনেস কতটা ভালো থাকবে সেই প্রশ্ন অবশ্য থাকছেই।

আর এই কারণে অনেকেই সাকিবের আইপিএল খেলার বিরোধী। বিশ্বকাপের মত বড় মিশনকে সামনে রেখে আইপিএলের সময়টায় সাকিবের বিশ্রাম প্রয়োজন বলে অভিমত অনেক ক্রিকেটপ্রেমির।
তবে এ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিচ্ছে না বিসিবি। বরং বোর্ড সিদ্ধান্তের ভার ছেড়েছে সাকিবের উপর। যদিও চোটের কারণেই মুস্তাফিজুর রহমানের মত ক্রিকেটারকে বিদেশি লিগ খেলতে মানা করা হয়েছিল। অবশ্য সাকিবকে ভিনদেশি আসরে খেলতে বাধা না দিলেও বোর্ড চাইছে সাকিবের বিশ্রাম।

এ প্রসঙ্গে আলাপকালে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানান, সাকিব আইপিএল খেলতে খুব আগ্রহী হওয়ায় তার উপরই সিদ্ধান্ত ছেড়ে দিচ্ছেন তারা। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি– মুস্তাফিজ আইপিএল খেলবে না। সাকিব খেলবে কি না এ নিয়ে কথা হচ্ছে। এখানে দেখতে হবে সে কী চায়। কারণ, সে আইপিএল খেলতে খুবই আগ্রহী।’ ‘যদি সে না খেলে তাহলে আমার সন্দেহ বাংলাদেশের মানুষ আইপিএল দেখবে কিনা। কারণ সবাই এখানে আইপিএল দেখে সাকিব আর মুস্তাফিজের কারণে।’–বলেন তিনি।

আইপিএলের মত দীর্ঘ ও ধকলযুক্ত আসরে খেললে চোট পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে প্রবল। বিশ্বকাপের আগে আইপিএল খেলা তাই একটু ঝুঁকিপূর্ণ। তবে সাকিব শেষমেশ আইপিএলে খেললে চোটের ব্যাপারে সতর্ক থাকবেন, এমনটিই প্রত্যাশা বোর্ড সভাপতির। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় সে সতর্ক থাকবে। এছাড়া আর কী বলতে পারি।’

মতামত দিন