ঈদে অর্ধশত হলে শাকিব খানের প্রজেক্টর ও সার্ভার

দেশের চলচ্চিত্র ব্যবসার প্রসারে প্রেক্ষাগৃহগুলোতে উন্নতমানের প্রজেক্টর ও সার্ভার বসাচ্ছেন শাকিব খান। ঈদের আগেই ৪০-৫০ টি প্রেক্ষাগৃহে এই প্রজেক্টর সরবরাহ করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদিপ কুমার দাস। মঙ্গলবার রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের হলে আমাদের দর্শক ধরে রাখতে ও দর্শক ফেরাতে উন্নত প্রযুক্তি প্রয়োজন, তাই আমরা শাকিব খানের প্রস্তাব গ্রহণ করেছি।’ প্রজেক্টর ও সার্ভার সরবরাহ করতে সিনেমা মালিকদের এখনই কোনো টাকা দিতে হবে না বলেও জানান তিনি।

সুদিপ কুমার দাস আরো যোগ করেন, এর আগে আমাদের সিনেমা হলগুলোতে জাজ মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর দিয়েছিলো, যেগুলোর অধিকাংশই এখন অকেজো। অনেকগুলো প্রজেক্টর কোনো কাজ করছে না এখন। এ অবস্থায়  শাকিব খান হলগুলোর মান বৃদ্ধিতে এগিয়ে আসছেন। তার নিজস্ব কোম্পানির মাধ্যমে উন্নত প্রযুক্তির প্রজেক্টর ও সার্ভার সরবরাহ করবেন বলে আমাদের সমিতিকে জানিয়েছেন। তার এ প্রস্তাব আমরা গ্রহণ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন এসকে ফিল্মসের এই নতুন প্রজেক্টের কারিগরি কর্মকর্তা মহিউদ্দিন হাওলাদার। এই প্রজেক্টের আগামী পরিকল্পণা নিয়ে কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, আমরা আগামী ১৫ বছরকে টার্গেট করে আমেরিকা থেকে এই প্রজেক্টর ও সার্ভার নিয়ে এসেছি। এরইমধ্যে ৭টি হলে এই প্রজেক্টরের মাধ্যমে ৩টি সিনেমা প্রদর্শন হচ্ছে। এখান থেকে কোনো প্রকার অভিযোগ আসেনি, বরং প্রশংসা পেয়েছি। আমাদের সার্ভার কেন্দ্রীয়ভাবে অনলাইনের আওতায় থাকবে, কোনো অসাধু ব্যক্তি এখান থেকে আলাদা কোনো ক্যামেরায় ছবি ধারণ করতে পারবে না। ধারণ করলেও তা স্পষ্ট দেখাবে না।

উল্লেখ্য, সংবাদ সম্মেলনে সমিতির উপদেষ্টা মিয়া আলাউদ্দিন, সহ-সভাপতি আর এন ইউনুস রুবেল, সহকারী সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন এলাহী সম্রাট, সাংগঠনিক সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বলসহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। তবে ওই সময়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির বর্তমান সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ অনুপস্থিত ছিলেন।