গাম্ভীরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

গাম্ভীরের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

গৌতম গাম্ভীর, কিছুদিন আগেই সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন। ১৯৯৯-২০০০ মৌসুমে ভারতীয় ক্রিকেটের সঙ্গে পথচলা শুরু হয়েছিল গাম্ভীরের। প্রায় দুই দশক পর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে বিদায়ের ঘোষণা দিলেন ভারতের হয়ে ২০১১ বিশ্বকাপ জয়ী এ তারকা। আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে অনুষ্ঠিত দিল্লী ও অন্ধ্র প্রদেশের মধ্যেকার রঞ্জি ট্রফির ম্যাচটি তার শেষ প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ হতে চলেছে।

এর মাঝেই তার ভক্তরা সাগ্রহে অপেক্ষা করছিল, আইপিএলে তিনি মুখ দেখান কিনা তা জানতে। কিন্তু গাম্ভীর ক্রিকেট থেকে বহু দূরে, ফাঁসলেন বড় কেলেঙ্কারিতে। তার বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (২০ ডিসেম্বর) গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করল ভারতের দিল্লির সাকেত আদালত।

কিন্তু গাম্ভীরের বিরুদ্ধে অভিযোগটা কী?

গাজিয়াবাদের ইন্দ্রপুরী অঞ্চলে রুদ্র বিল্ডওয়েল রিয়েলটি প্রাইভেট লিমিটেড এবং এইচ আর ইনফারসিটি প্রাইভেট লিমিটেড নামক সংস্থার যৌথ উদ্যোগে নির্মীয়মান আবাসনের ব্র্যাণ্ড অ্যাম্বাসাডার ছিলেন গৌতম। ২০১১ সালে প্রকল্পটি শুরু হয়। ১৭ জন ক্রেতা অভিযোগ করেন, আট বছর পার হতে চলল, দু’কোটি টাকা করে খরচ করেছেন তারা ফ্ল্যাট কিনতে। আজ পর্যন্ত চাবি পাননি।

এর পরেই সংস্থার বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে দিল্লির সাকেত আদালত। ডাকা হয় দুই শীর্ষকর্তা মুকেশ খুরানা ও গৌতম মেহেতাকে। ডাকা হয় গাম্ভীরকেও। গাম্ভীর বিষয়টি পুনর্বিবেচনার আবেদন জানালে তাও নাকচ করে দেওয়া হয়।

চিফ মেট্রোপলিটল ম্যাজিস্ট্রেট মনীশ খুরানার কথায়, বার বার শুনানির দিন ঘোষণা করা সত্ত্বেও আদালতে হাজিরা দেননি গাম্ভীর।

তার পরেই, তার বিরুদ্ধে দশ হাজার টাকার জামিনযোগ্য ধারায় গ্রেফতারির পরোয়ানা জারি করা হয়। অভিযোগ তার ভাবমূর্তিকে ব্যবহার করে অর্থ তছরুপ করেছে ওই সংস্থা।

আদালতের পরবর্তী শুনানি আগামী ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯। নতুন বছরে গম্ভীরের জীবন কোন দিকে বাঁক নেয়, তা দেখতে মুখিয়ে আছে ভক্তরা।

মতামত দিন