দ্বিতীয় টেস্টেই সাকিবের দলে ফেরার প্রত্যাশা

ইনজুরি আক্রান্ত ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান দলের সাথে নিউজিল্যান্ড সফরে যেতে পারেননি। ওয়ানডে সিরিজে তো অনুপস্থিত থাকবেনই, সাকিব থাকবেন না টেস্ট সিরিজের শুরুর দিকেও।
তবে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড ও সফরকারী বাংলাদেশের মধ্যকার তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টেই ফেরার প্রত্যাশা করছেন সাকিব।



বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচে চোট পাওয়া সাকিবকে অন্তত চার সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে। তাই সাকিবের বিশ্বাস, সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের আগেই দলে যোগ দিতে পারবেন তিনি। সেটি না হলেও তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে অংশ নেওয়া নিশ্চিত ব্যাপারই বলা চলে।
সাকিব বলেন, ‘শেষ দুই টেস্ট কিংবা তিন নম্বরটা খেলার ইচ্ছা আছে। পারব সম্ভবত। চার সপ্তাহের মতো সময় লাগার কথা। তাতে সিরিজের শেষ দুটি টেস্টও খেলতে পারি। মনে হয় পারব। অন্তত শেষটা খেলা খুব সম্ভব বলেই মনে হচ্ছে।’



তবে সাকিবের ভয় অন্য জায়গায়। টেস্ট ক্রিকেটের ধকল সামলাতে গিয়ে চোটাক্রান্ত হওয়ার প্রবল ঝুঁকি থাকে। এবার তো অচেনা কন্ডিশনে টাইগাররা খেলবে তিনটি টেস্ট। তিনি বলেন, ‘তিন টেস্টের সিরিজ। কখন যে কার চোট লাগে! টেস্টে এমনিতেই ধকল বেশি। তার ওপর তিন টেস্ট! ইনজুরির সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে।’
বিপিএলের ফাইনালে থিসারা পেরেরার ডেলিভারিতে চোট পাওয়া সাকিব বলেন, ‘থিসারার বলটা লাগার পরই বুঝে গিয়েছিলাম ভেঙেছে। এ ধরনের চোটের চিকিৎসা একটাই– আঙুলটাকে বিশ্রাম দেওয়া। সে কারণেই মনে হচ্ছে নিউজিল্যান্ডে খেলতে পারব। এই আঙুলটার জন্যই তো ফাইনাল জিততে পারলাম না। আঙুলে লাগার পরই মনে হচ্ছিল ঐ ওভারেই আউট হয়ে যাব, হলামও। আউট না হলে রেজাল্ট অন্যরকম হতো, ম্যাচ তো তখন আমাদের নিয়ন্ত্রণে।’



তবে বিপিএলের ফাইনাল হার কিংবা আঙুলের চোট- কোনোকিছুতেই এখন ভেঙে পড়েন না সাকিব। তার দাবি, ‘বুঝতে পারি আমার নিজের মধ্যে কিছু পরিবর্তন এসেছে। জিতলে যেমন খুব খুশি হই না আবার হারলেও ভেঙে পড়ি না। নিজের কষ্টটা করে যাব, কিছু পেলে পেলাম, না পেলে নাই।’

মতামত দিন