পরীকে নিয়ে শুরু হলো ‘বিশ্বসুন্দরী’র শুটিং

নন্দিত নাট্য নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীর প্রথম চলচ্চিত্র ‘বিশ্বসুন্দরী’র শুটিং ফরিদপুরে শুরু হলো আজ। প্রায় ৪০০ একক ও ১৮টি ধারাবাহিক নাটক পরিচালনার অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন চয়নিকা। প্রথম পর্যায়ের শুটিংয়ে অংশ নিচ্ছেন চিত্রনায়িকা পরীমনি।

চয়নিকা চৌধুরী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ ছবির গল্প, চরিত্র ও শুটিং লোকেশন নিয়ে কাজ করেছি। শুটিং পূর্ববর্তী কাজে সন্তুষ্ট না হয়ে আমরা কেউই এই স্বপ্নের প্রকল্পের কাজ শুরু করতে চাইনি। আমি আশাবাদী সবাই মিলে দর্শকদের মন ছুঁয়ে যাবার মত একটি চলচ্চিত্র উপহার দিতে পারবো।’

পরিচালক জানান, প্রথম পর্যায়ের শুটিংয়ে অংশ নিচ্ছেন চিত্রনায়িকা পরীমনি ছাড়াও ফজলুর রহমান বাবু ও মনিরা মিঠু সহ আরো অনেকে অংশ নিচ্ছেন। পরবর্তী লটে যোগ দেবেন অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা, চিত্রনায়ক সিয়াম আহমেদ, আনন্দ খালেদ সহ অন্যরা। শিল্পী তালিকায় রয়েছে আরো বেশ কিছু চমক।

ক্যামেরা ওপেন করার আগে ক্ল্যাপস্টিক দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ছবির মহরত অনুষ্ঠিত হয়। আবেগাপ্লুত নবাগত চলচ্চিত্র পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী বলেন, আমি সংখ্যাতত্ত্বে তেমন বিশ্বাস করিনা। তারপরও ভাবতে ভালো লাগছে, ১৮ আগষ্ট ২০০১ সালে নাট্যপরিচালক হিসেবে দর্শক প্রথম আমাকে চিনেছিলেন। ১৮ বছর পর ১৮ তারিখেই চলচ্চিত্রের ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালাম। ১৮ আগষ্ট ২০০১ দিনটিও ছিল মঙ্গলবার। এবারও মঙ্গলবারই আমার প্রথম চলচ্চিত্রের শুটিং শুরু হলো। পুরো বিষয়টিই কাকতালীয়। প্রকৃতিই হয়তো এমনটি চেয়েছিল। আশা করছি ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত সবার সহযোগিতায় দর্শকদের মনে রাখার মত একটি চলচ্চিত্র উপহার দিতে পারবো।

এ ছবির মাধ্যমে প্রায় আড়াই বছর পর চলচ্চিত্রের ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালেন চিত্রনায়িকা পরীমনি। তিনি বলেন, ‘স্বপ্নজাল’-এ অভিনয় করার পর থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ভালো মানের চলচ্চিত্র, মন ছুঁয়ে যাবার মত চিত্রনাট্য ও চরিত্র না পেলে আর কখনোই চলচ্চিত্রে কাজ করবো না। ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রের ‘শোভা’ চরিত্রটি শুধু আমি নই, যে কোনো অভিনেত্রীর জন্যই বিশেষ কিছু। আশা করি দর্শক আমার থেকে নতুন কিছু পেতে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, সান মিউজিক অ্যান্ড মোশন পিকচার্স লিমিটেড প্রযোজিত ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রের কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেছেন রুম্মান রশীদ খান।