বিকেলে মিরপুরে মুখোমুখি ‍বাংলাদেশ-উইন্ডিজ

বিকেলে মুখোমুখি ‍বাংলাদেশ-উইন্ডিজ

উইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজের শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছে বাংলাদেশ। ১২৯ রানে অলআউট বাংলাদেশ ম্যাচে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বীতাই গড়ে তুলতে পারেনি। হেরেছে আট উইকেটে। সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেছে ক্যারিবীয়রা।

সিরিজে টিকে থাকতে বৃহস্পতিবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে খেলতে নামবে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। এ ম্যাচে জয়ের কোনো বিকল্প নেই বাংলাদেশের। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টায়।

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বরাবরই শক্তিশালী দল। ক্যারিবীয়রা বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। র‌্যাঙ্কিংয়েও বাংলাদেশ থেকে তারা এগিয়ে। আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এখন সপ্তম অবস্থানে, দশম অবস্থানে আছে বাংলাদেশ।

সিলেটের ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটিং-বোলিং কোনোটিই ভালো হয়নি। ক্যারিবিয়ান পেসারদের কাছে একের পর এক উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ওই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের শেলডন কটরেল ও ওশানে থমাসের গতির কাছে পরাস্থ হন তামিম-মুশফিকরা। অন্যরা ব্যর্থ হলেও অধিনায়ক সাকিব আল হাসান একাই লড়ে যান। ৪৩ বলে ৬১ রান করেন তিনি।

সেদিন বাংলাদেশের কোনো বোলারই পাত্তা পায়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানদের কাছে। ৫৫ বল বাকি থাকতে জয় পায় সফরকারীরা। তারা মোট ১০টি ছক্কা মারে। এর মধ্যে শাই হোপ একাই মারেন ছয়টি ছক্কা। তাছাড়া তারা চার মারেন আটটি। বাংলাদেশের দেয়া ১৩০ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে তারা বাউন্ডারি থেকে নেয় ৯২ রান।

গুরুত্বপূর্ণ আজকের ম্যাচে নামার আগে বাংলাদেশ অনুপ্রেরণা খুঁজে পাচ্ছে আগের টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে। চার মাস আগে এই ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষেই তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ পিছিয়ে থেকে জিতেছিল বাংলাদেশ। সেবার খেলেছিল আবার আয়োজক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচ ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে খেলার পর বাকি দু’টি খেলা হয়েছিল ফ্লোরিয়ায়। সেই সিরিজের মতো এবারও একই পরিস্থিতির সামনে সাকিবরা।

ঘরের মাঠে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর টি-টোয়েন্টির শুরুতে ধাক্কা খেয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। যদিও শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত তারা। সেন্ট কিটসের প্রথম ম্যাচ হারের পর ফ্লোরিডায় ঘুরে দাঁড়ানো বাংলাদেশেকে দেখার অপেক্ষায় দেশের ক্রিকেটভক্তরা।

বুধবার ম্যাচ পূর্ববর্তী বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসা সৌম্য সরকার জানান, তারা খেলা নিয়েই ভাবতে চান। আর ভাবতে চান, কিভাবে সিরিজে সমতা ফেরানো যায়।

ক্যারিবিয়ানরাও যে হাত, পা গুটিয়ে বসে থাকবে না। প্রথম ম্যাচে যে দাপট তারা দেখিয়েছে সন্দেহতীতভাবেই সেই দাপট তারা দ্বিতীয় ম্যাচেও অব্যাহত রাখতে চাইবে। তাতে করে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত হবে।

মতামত দিন