শাকিব ভাই উদারতার পরিচয় দিয়েছেন : ইমন

আসন্ন ঈদে প্রেক্ষাগৃহে আসবে সুপারস্টার শাকিব খান প্রযোজিত মালেক আফসারী পরিচালিত ছবি ‘পাসওয়ার্ড’। এ ছবিতে শাকিব খান, শবনম বুবলীর পাশাপাশি একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যাবে চিত্রনায়ক ইমনকে। ‘পাসওয়ার্ড’ নিয়ে ইমন কি ভাবছেন? এক আলাপচারিতায় ইমন তুলে ধরলেন নিজের ভাবনা।

দীর্ঘদিন বাদে ঈদে আপনার ছবি মুক্তি পাচ্ছে, কেমন লাগছে?

অসাধারণ, ঈদে ছবি আসার একটা আলাদা মজা আছে। ঈদে মানুষ ছবিটা বেশি দেখতে যায়। এর আগেও আমার ছবি মুক্তি পেয়েছিল ঈদে, কিন্তু অনেক বছর পর আবার ঈদে আমার ছবি মুক্তি পাচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা অনেকগুলো হলে রিলিজ পাবে, আই অ্যাম সো মাচ এক্সাইটেড।

‘পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী – ২’ – এর পর শাকিব খানের সাথে দ্বিতীয়বারের মতো কাজ করলেন . . .

আমার সাথে উনার অনেক ছবির অফার ছিল, কিন্তু ‘পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী – ২’ করেছিলাম কারণ ক্রিকেট নিয়ে ছবি। এরপর অনেক অফার আসছে, বাট ওগুলো আমার ব্যাটে বলে মিলেনি। আর এটায় কাজ করার কারণ হচ্ছে এটি শাকিব খানের নিজস্ব প্রোডাকশন। নিজস্ব প্রোডাকশনের প্রতি মানুষ যত্নশীল হয়। আর উনি যখন আমাকে অফার করলেন তখন বললেন গল্পটা শুনে দেখো ভালো লাগলে কোরো। আমি যখন গল্পটা শুনলাম তখন আমার কাছে অনেক ইন্টারেস্টিং লেগেছে, একটিং করার জায়গা আছে। সবকিছু মিলিয়ে মনে হলো ছবিটা করা যায়।

সেন্সরবোর্ড – এর সদস্যরা আপনার অভিনয়ের প্রশংসা করলেন . . .

সেন্সরবোর্ড তো একটি পরীক্ষাকেন্দ্রের মতো, পরীক্ষাকেন্দ্রে যখন আমাদের পরীক্ষা হয় সে পরীক্ষাকেন্দ্রের টিচাররা যখন বলে যে তোমার এ কাজটা ভালো হয়েছে তখন তো আমরা পজিটিভভাবেই দেখি, আশাবাদী হই। সেক্ষেত্রে আমার মনে হচ্ছিল উনারা যেহেতু এভাবে প্রশংসা করেছে সেহেতু দর্শকও ছবিটা পছন্দ করবে। তাছাড়া উনারা বলেছেন ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার চান্স আছে। শাকিব ভাই বলেছেন, মালেক আফসারী ভাই বলেছেন,পুরো ইউনিট বলেছে। আমি নিজেও আশাবাদী সবকিছু মিলিয়ে নতুন একটি বিষয় দর্শক এনজয় করবে নতুন ইমনকে নিয়ে। আশা করি দর্শককে নিরাশ করবো না ইনশাআল্লাহ।

দেশের খ্যাতিমান পরিচালক মালেক আফসারীর পরিচালনায় অভিনয় করলেন, ব্যাপারটি কিভাবে দেখছেন?

মালেক আফসারী ভাই একজন গুণী নির্মাতা কোন সন্দেহ নেই। তিনি ফিল্মটা ভালো বোঝেন, দর্শকের টেস্টটা খুব ভালো বোঝেন, সেক্ষেত্রে আমার খুব ইচ্ছে ছিল তার সাথে কাজ করার, ব্যাটে বলে মিলে গেল। সত্যি কথা বলতে কি কাজ করার সময় উনার সাথে যখন কথা বলেছি তখন দেখেছি তিনি স্মার্ট ম্যান, স্মার্ট চিন্তা ভাবনা। উনি কো-আর্টিস্টদের কথা শোনেন, এতে একজন আর্টিস্টের কাজ করা অনেক ইজি হয়ে যায়। যদিও আমাদের দেশে অনেক ভালো ভালো তরুণ নির্মাতারা এগিয়ে আসছেন, তারপরেও বলবো মালেক আফসারীর মেকিংয়ে একটি আধুনিকতার ছাপ থাকবে, তিনি আসলেই একজন মাস্টার মেকার।

চিত্রনায়িকা বুবলীর সাথে এটি আপনার প্রথম কাজ, সহশিল্পী হিসেবে কেমন ছিলেন তিনি?

বুবলীকে আমি সবসময় সিরিয়াস দেখেছি, তার কাজের মোমেন্টে সে পজিটিভ ছিল। সে ডেডিকেটেড তার কাজ নিয়ে। আমার চোখে মনে হয়েছে সে ফিল্মকে ভালোবাসে সবকিছু মিলিয়ে।

বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সময়ই মুক্তি পাচ্ছে ‘পাসওয়ার্ড’, এতে কি কোন প্রভাব পড়তে পারে?

না, এরকম কিছু হবে না। বাংলাদেশের খেলা যখন থাকবে তখন তো মানুষ বাংলাদেশের খেলা দেখবে অবশ্যই। কিন্তু প্রতিদিন তো আর ক্রিকেট খেলা থাকবেনা। মানুষের এবারের আগ্রহ হচ্ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশের খেলা। আমার নিজেরও আগ্রহ, বাংলাদেশের খেলার দিন আমি নিজেও অন্য কোথাও যাব না। সিনেমাটা তো একমাস হলে হলে চলবে, মানুষ ঠিকই ফাঁকে ফাঁকে সিনেমাহলে গিয়ে দেখবে। আর আমাদের দেশের মানুষ তো ফিল্ম পাগল লোক, খেলা পাগল লোক, তারা ছবিটা মিস করবেনা। ‘পাসওয়ার্ড’ যে মানের ছবি, আমি তো বলব ডোন্ট মিস ইট। আমার মনে হয় কোন ইফেক্ট পড়বেনা ওয়ার্ল্ড কাপ ক্রিকেটের। যে ছবি ভালোবাসে সে অবশ্যই হলে গিয়ে ছবিটা দেখবে।

সবমিলিয়ে ‘পাসওয়ার্ড’ – এ অভিনয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে কি বলবেন?

একজন নায়ক যখন প্রডিউসার হয়, সে যখন আরেকজন নায়ককে নেয়। এসকে প্রোডাকশন আমাকে নিয়েছে, তারা আমাকে সম্মান দিয়েছে। তারা আমাকে না নিলেও পারতো। শাকিব ভাই একজন হিরো হয়ে আরেকজন হিরোকে কাস্টিং করেছেন, আমি মনে করি তিনি বিশাল উদারতার পরিচয় দিয়েছেন। তিনি মনে করেছেন এই ক্যারেক্টারটা ইমন করলে ভালো হয়, সে জন্য নিয়েছেন। যখন আমি তার সাথে কথা বলেছি, কাজ করেছি, গল্প করেছি দেখেছি যে তিনি আপাদমস্তক একজন ফিল্মের মানুষ। তিনি ফিল্মকে ভালোবাসেন। কাজ করতে গিয়ে অনেককিছু শিখেছি দেখে দেখে, এই শিক্ষাটা আমার অন্যান্য ছবিতে কাজে দিবে, প্রয়োগ করব।

ফিল্মের পরিবেশটা অনেক ভালো ছিল, কাজের পরিবেশটা ভালো ছিল। সবমিলিয়ে ঠিক আছে সবকিছু। আমার মনে হয়েছে আমার কাছে তারা যা চেয়েছেন আমি তাই দিয়েছি। যখন উনারা বলেছেন আমরা যা চেয়েছি তাই পেয়েছি তখন আমি সন্তুষ্ট হয়েছি।

দর্শক কেন ‘পাসওয়ার্ড’ দেখবে?

এটিতে সুন্দর গান, সুন্দর মেকিং, সুন্দর একটা গল্প আছে, সবচেয়ে বড় কথা অভিনয়ে নতুনত্ব আছে। দর্শক গল্পের টানে, মেকিংয়ের টানে, অভিনয়ের টানে ‘পাসওয়ার্ড’ দেখবে ইনশাআল্লাহ।

ঈদ এবার কিভাবে কাটাবেন?

ঈদের পরিকল্পনা আসলে ‘পাসওয়ার্ড’, আগামী চার পাঁচ দিন প্রমোশনে থাকব। অবশ্যই ঈদের দিন থেকে হলে হলে গিয়ে ছবিটা দেখব। আমি যে ক্যারেক্টারটা করেছি, যেহেতু সেটা প্রশংসিত হয়েছে, আমি দর্শকের প্রতিক্রিয়া দেখতে চাই হলে বসে। এই ক্যারেক্টারটা নিয়ে আমি একটু স্টাডি করব, কি ভাবছে দর্শক আমার ক্যারেক্টারটা নিয়ে। আগামী বেশ কিছুদিন ‘পাসওয়ার্ড’- এ ডুবে থাকার ইচ্ছে আছে।