No icon

প্রেমের রানী নাগমা


ভারতের সিনে জগতের এক আলোচিত নাম নাগমা। জীবনে বহু পুরুষের সাথে সম্পর্কে জড়িয়েছেন , কিন্তুএখনো তিনি একা। বলিউড ও দক্ষিণের নায়িকা নাগমার ক্যারিয়ার শুরু হয় সালমান খানের বিপরীতে ১৯৯০ সালে ‘বাঘি : এ রেবেল ফর লাভ’ সিনেমার মাধ্যমে। বলিউডে নিজের স্বতন্ত্র অবস্থান গড়তে না পারলেও নাগমা আলোচনায় থেকেছেন নানা গুঞ্জনে। কাজ করেছেন ভোজপুরী ও পাঞ্জাবী ইন্ডাস্ট্রিতেও। নিজেকে বিবাহিত পুরুষদের প্রেমে জড়িয়েছেন । 
নাগমার সাথে সম্পর্ক ছিলো ভারতের বাঙালী ক্রিকেটার ও প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলীর। একসময় সিনে পত্রিকার অন্যতম আকর্ষণ ছিলো এ জুটির সংবাদ। শুধু তাই নয়, দক্ষিণী অভিনেতা ও সাংসদ শরত কুমারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো এ অভিনেত্রীর। দুই বিবাহিত পুরুষ সৌরভ কিংবা শরত কুমার কারো সাথেই টিকেনি নাগমার প্রেমের সম্পর্ক।

কথিত আছে শরত কুমারের সাথে বিচ্ছেদের কারণে দক্ষিণে ক্যারিয়ার বড় করতে পারেননি নাগমা।
নাগমা এরপর ভোজপুরি ছবিতে কাজ শুরু করেন। সেখানে তার ঘনিষ্ঠতা বাড়ে সে ইন্ডাস্ট্রির সুপারস্টার রবি কিষেণের সাথে। নাগমা এনিয়ে চুপ থাকলেও রবি জানিয়েছিলেন তার স্ত্রী পর্যন্ত বিষয়টা জানেন। এমনকি নাগমা নাকি তার বাড়িতে এসে স্ত্রীর সাথে রান্নাও করতেন। তার স্ত্রী নাগমার সাথে ছবি করতে রবিকে উৎসাহও দিয়েছেন বলে শোনা যায়। এই সম্পর্কটিও টিকেনি নাগমার। ভোজপুরি ছবির আরেক নায়ক মনোজ তিওয়ারির সাথেও সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন নাগমা। রবির প্রতিদ্বন্দ্বী মনোজের সাথে প্রেমও সংসার পর্যন্ত গড়ায়নি নাগমার।

ধারণা করা হয় ‘জুলি ২’ ছবিটি নির্মিত হয়েছে নাগমার জীবনের কাহিনিকে উপজীব্য করেই।
একাধিক বিবাহিত পুরুষের প্রেমে জড়িয়ে ক্যারিয়ারকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলা নাগমা একসময় রাজনীতিতে মনোযোগ দিয়েছিলেন। কংগ্রেসের হয়ে ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচন করে হেরে যান নাগমা। ২০১৯ সালে প্রচারণায় অংশ নিলেও নির্বাচনে অংশ নেননি তিনি। এখনো একা নাগমা, রাজনীতি নিয়েই আপাতত দিনযাপন করছেন। অথচ যার ঝুলিতে ‘কিং আঙ্কেল’, ‘সুহাগ’, ‘লাল বাদশা’, ‘চল মেরে ভাই’, ‘ইয়ে তেরা ঘর ইয়ে মেরা ঘর’, ‘আব তুমহারে হাওয়ালে বতন সাথিয়ো’র মতো দর্শকপ্রিয় ছবি রয়েছে। তার ক্যারিয়ার আরো বর্ণিল হতে পারতো বলে মনে করেছিলেন সিনে সমালোচকরা।
 

Comment As:

Comment (0)