আমি ছবিতে সংলাপ বলেছি

পেইজথ্রি ডেস্ক।।
আমি একজন অভিনেতা। আমাকে পরিচালক যেভাবে নির্দেশনা দিয়েছে সেভাবেই আমি ছবিতে সংলাপ বলেছি। এ ছবির স্ক্রিপ্ট অনুযায়ী সংলাপ প্রদান করা হয়েছে। আর ছবিটি অনেকদিন আগে মুক্তি পেয়েছে। এখানে আমার দোষ কোথায়। আমি ঠিক বুঝলাম না। মামলার বিষয়টি তো ছবির পরিচালক বা প্রযোজক দেখবেন। আমার দেখার কথা না। এটা নিয়ে এর বেশিকিছু আমার বলার নেই। বললেন শাকিব খান।‘রাজনীতি’ সিনেমায় মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে প্রতারণার অভিযোগে নায়ক শাকিব খান, পরিচালক ও প্রযোজকের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে এসব কথা বলেন তিনি।গেলো ২৯ অক্টোবর হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সম্পা জাহানের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন বানিয়াচং উপজেলার যাত্রাপাশা গ্রামের সিএনজি চালক ইজাজুল মিয়া।একই সাথে মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ‘রাজনীতি’ সিনেমার প্রদর্শন বন্ধের আবেদন জানানো হয়েছে।মামলায় উল্লেখ করা হয়, প্রায় ২ ঘন্টা ১৬ মিনিট ১১ সেকেন্ড ব্যাপ্তির ‘রাজনীতি’ চলচ্চিত্রের ২৬ মিনিট ১২ সেকেন্ডর সময় চলচ্চিত্রের নায়িকা অপু বিশ্বাস একটি ডায়লগ দেন ‘এভাবে আর কোনোদিন চলে যেতে দেব না আমার স্বপ্নের রাজকুমার’, জবাবে নায়ক শাকিব খান ডায়লগ দেন ‘আমিও তোমাকে আর ছেড়ে যাব না আমার রাজকুমারী’, নায়িকা অপু বিশ্বাসের ডায়লগ ‘আমার ফেইসবুক আইডি যে ‘রাজকুমারী’ তুমি তা জানলে কী করে, জবাবে নায়ক শাকিব খান ডায়লগ দেন ‘যেভাবে তুমি জানো আমার মোবাইল নম্বর ০১৭১*******’। প্রকৃতপক্ষের মোবাইল নম্বরটি চিত্রনায়ক শাকিব খানের নয়। সেই মোবাইল নম্বরের মালিক হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার যাত্রাপাশা গ্রামের ইজাজুল মিয়া।আসামিদের মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে প্রচারিত ইজাজুল মিয়ার মোবাইল ফোন নম্বরে গত ১০/৭/২০১৭ সোমবার রাত ১০টা ৬মিনিট ৫৯ সেকেন্ড হতে ১৫/৭/২০১৭ শনিবার রাত ৯টা ২৯ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড এর মধ্যে ৪৩২টি কল আসে। তাদের বেশিরভাগ মেয়ে। এর মধ্যে খুলনা থেকে এক গৃহকর্মী চলে আসে ইজাজুলের বানিয়াচংয়ের বাড়িতে। তাছাড়া রাত বিরাতে অনবরত মেয়েরা ফোন করতে থাকে ইজাজুলের মোবাইল নম্বরে। ফলে ১ সন্তানের জনক ইজাজুলের সংসার ভাঙ্গার উপক্রম হয়।অনুমতি ছাড়া সিনেমায় মোবাইল নম্বর ব্যবহার করায় এবং সেটি বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচারিত হওয়ায় প্রতারণা ও ৫০ লাখ টাকার মানহানির মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মতামত দিন