মাধুরীর সেরা দশটি গান!

বলিউড ডিভা মাধুরী দিক্ষীতের জন্মদিন ছিল ১৫ মে। অনিন্দ্য সুন্দরী এ বলিউড তারকার জন্মদিন উপলক্ষে বেছে নেয়া হয়েছে সেরা দশটি গান। চলুন, দেখে নেয়া যাক মাধুরীর ক্যারিয়ারের দর্শকপ্রিয় গানগুলো।

এক দো তিন – তেজাব (১৯৮৮)

মাধুরীর প্রথম হিট গান, যে গান দিয়ে তিনি আলোচনায় আসেন। রীতিমতো ঝড় তোলেন বলিউডে।

হামকো আজকাল – সায়লাব (১৯৯০)

মাধুরীর আরেকটি জনপ্রিয় গান, অত্যন্ত জনপ্রিয়তা পায় এ গানটি।

ধক ধক করনে লাগা – বেটা (১৯৯২)

এই একটি গানের জন্যই মাধুরীকে আজীবন মনে রাখা যায়। ‘ধক ধক গার্ল’ বললে চোখে ভেসে ওঠে মাধুরীর হাসিমাখা মুখ।

চোলি কে পিছে – খলনায়ক (১৯৯৩)

সঞ্জয় দত্তের বিপরীতে, আবেদনময়ী মাধুরীর এ গান ঝড় তুলেছিল তরুণ দর্শকের হৃদয়ে।

দিদি তেরা দেবর দিওয়ানা – হাম আপকে হ্যায় কৌন (১৯৯৪)

মাধুরীর আরেকটি সিগনেচার গান। পিঠ খোলা ব্লাউজের মাধুরী তো রীতিমতো ভাইরাল হয়ে পড়েন সে সময়।

আঁখিয়া মিলাও কাভি – রাজা (১৯৯৫)

সঞ্জয় কাপুর ও মাধুরীর এ গানটি সে সময়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে। এখনো এ গানটির দর্শকপ্রিয়তা অটুট।

পায়েল মেরি – রাজকুমার (১৯৯৬)

অনিল কাপুরের সাথে আবেদনময়ী মাধুরীর রসায়ন উল্লেখযোগ্য এ গানে।

মার ডালা – দেবদাস (২০০২)

মাধুরীকে দেখা গেল ক্লাসিক নৃত্যের তালে দর্শককে মুগ্ধ করতে। অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে গেল সেই গান এবং অবশ্যই মাধুরীর আদা।

আজা নাচলে – আজা নাচলে (২০০৭)

মাধুরীর প্রত্যাবর্তনের সিনেমায় টাইটেল গানে নাচের দক্ষতা দেখালেন তিনি। আরো একবার দর্শক বিমোহিত হলো মাধুরীতে।

ঘাগরা – ইয়ে জওয়ানি হ্যায় দিওয়ানি (২০১৩)

রনবীর কাপুরের সঙ্গে মাধুরীর করা ক্লাসিক আইটেম গান। মধ্য চল্লিশেও যে দর্শকের হৃদয়ে ঝড় তোলা যায় তা মাধুরী গানটি না করলে বোঝা যেত না।

 

এ গানগুলোর বাইরেও মাধুরীর আরো কিছু গান রয়েছে যা আজো দর্শক গুণগুণ করে গায়। এরমধ্যে রয়েছে আনজাম ছবির ‘চানে কি খেত ম্যায়’, দিল ছবির ‘মুঝে নিদ না আয়ে’ ও ‘দম দমা দম’, রাজা ছবির ‘কিসি দিন বানুগি’ ও ‘তুমনে আগার পেয়ার সে’, পুকার ছবির ‘কে সারা সারা’, ইয়ারানা ছবির ‘ওয়ে ওয়ে’, প্রেমগ্রন্থ ছবির ‘দিল দে নে কি’, লজ্জা ছবির ‘বড়ি মুশকিল’, দেবদাস ছবির ‘ডোলা রে’ ইত্যাদি গান। প্রায় সবগুলো গানই মাধুরীর জনপ্রিয়তা প্রকাশ করে।