ছক্কার রাজা মার্টিনগাপটিল


সিরিজের প্রথম ম্যাচে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে হেঁটেছেন মার্টিন গাপটিল। দ্বিতীয় ম্যাচে সেই গাপটিলই হয়ে গেলেন জয়ের নায়ক। খেলেছেন ৯৭ রানের অসাধারণ ইনিংস। সেইসঙ্গে আরেকটি রেকর্ডে নিজের নাম লেখালেন এই কিউই ওপেনার।

সেটা হলো টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে ছক্কা মারার রেকর্ড। এই ফরম্যাটে কিউই ওপেনার গাপটিল এখন সবচেয়ে বেশি ছক্কার মালিক।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ১২৭টি ছক্কা নিয়ে এত দিন সবার ওপরে ছিলেন রোহিত শর্মা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেই রেকর্ড ভাঙলেন গাপটিল। ৯৭ রানের ইনিংসে আট ছক্কা হাঁকিয়ে উঠলেন তালিকার শীর্ষস্থানে। সবচেয়ে বেশি ১৩২টি ছক্কা এখন গাপটিলের নামের পাশে। দ্বিতীয় স্থানে রোহিত।

৯২ ম্যাচ খেলে এই রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন গাপটিল। অন্যদিকে, ১২৭টি ছক্কা মারা রোহিতের লেগেছে ১০০ ইনিংস। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে রোহিত-গাপটিল ছাড়াও ছক্কার সেঞ্চুরি আছে ইংলিশ তারকা ইয়ং মর্গান, কলিন মুনরো ও ক্রিস গেইলের। এর মধ্যে সবচেয়ে কম ইনিংস খেলে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন গেইল। ৫৪ ইনিংসে ১০৫ ছক্কার মালিক ক্যারিবীয় তারকা।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটিতে চার রানে জয় তুলে নিয়েছে কেইন উইলিয়ামসনের দল। এই জয়ের মাধ্যমে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে আরও এগিয়ে গেল নিউজিল্যান্ড। এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৫৩ রানে জিতেছে স্বাগতিকেরা। সব মিলিয়ে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল নিউজিল্যান্ড।

আজ বৃহস্পতিবার ডানেডিনের ইউনিভার্সিটি ওভালে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২১৯ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। সবচেয়ে বেশি ৫০ বলে ৯৭ রান করেন গাপটিল। তাঁর ইনিংসটি সাজানো ছিল ছয় বাউন্ডারি ও আট ছক্কায়।

বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। সেখান থেকে দলকে লড়াইয়ে ফেরান স্টয়নিস ও স্যামস। দুজনে মিলে সপ্তম উইকেটে লড়াই জমিয়ে তোলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত চার রানে জয়ের হাসি হাসে নিউজিল্যান্ড। ৩৭ বলে ৭৮ রান করেন স্টয়নিস। ১৫ বলে ৪১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন স্যামস। ৪৫ রান আসে ফিলিপসের ব্যাট থেকে। নির্ধারিত ওভারে আট উইকেটে ২১৫ রানে থামে অস্ট্রেলিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *